মোহাম্মাদ কাসীম বলেন, ২৪ নভেম্বর ২০১৫, আমি একটি স্বপ্ন দেখেছিলাম যে, সেখানে সর্বত্র অন্ধকার ছিল, এবং আকাশও খুব অন্ধকার ছিল, বিশাল মেশিন এবং প্লেন আকাশ জুড়ে উড়তেছিল। এবং তাদের অধীনে তারা সবকিছু নিয়ন্ত্রণ করছিল, লোকদের কোন বিকল্প ছিল না, যদি না তারা তাদের স্বৈরশাসন গ্রহণ করে। এবং আমি আকাশের দিকে তাকিয়েছিলাম চাঁদ অনুসন্ধানের জন্য। আমি ইহা পেয়েছিলাম। তারপর আমি নিজেকে বললাম, আমার স্বপ্ন অনুসারে আমি কি দেখেছিলাম যখন সেখানে সর্বত্র অন্ধকার ছিল এবং আমি দেখলাম ৪টি চাঁদ। তারপর ইহার মানে যে, এই হয় সময় যখন আল্লাহ্‌ আমাকে সাহায্য করবেন। তাই আমি খুব যত্নের সাথে আকাশের দিকে তাকিয়েছিলাম এবং আমি পেয়েছি্লাম ১ম চাঁদ, তারপর ২য়, তারপর ৩য় এবং তারপর আমি বলেছিলাম যে এখানে ৪র্থ চাঁদ থাকা উচিত, তাই আমি পুরো আকাশের দিকে তাকালাম কিন্তু যখন আমি ৪র্থ চাঁদ দেখতে পাইনি। তারপর আমি হতাশ হয়েছিলাম এবং আল্লাহ্‌ সুবহানাহু ওয়া তায়ালাকে জিজ্ঞেস করলাম, তোমার সাহায্য কখন আসবে? এবং সাথে সাথে আমি ঠিক নিজের উপরের আকাশের দিকে তাকিয়েছিলাম এবং আমি দেখলাম ৪র্থ চাঁদ। তাই আমি খুব খুশি যে আল্লাহ্‌র প্রতিশ্রুতির সময় এসেছে। আমি একটি উচ্চ বিল্ডিংয়ে আরোহন এবং লাফ দিয়েছিলাম এবং সাথে সাথে আমি বাতাসে দৌড়াতে শুরুকরি আল্লাহ্‌ সুবহানাহু ওয়া তায়ালার দয়ায়। এবং আল্লাহ্‌ সুবহানাহু ওয়া তায়ালার নূর আমার ডান হাতের শাহাদাত আঙ্গুলের উপর হাজির হয় এবং আমি বিশাল মেশিন এবং প্লেন ধ্বংস করা শুরু করি, আমি আকাশে চলতে থাকি এবং মেশিনগুলি ধ্বংস করলাম। এবং মানুষ খুশি হতে শুরু করেছিল যে, অন্তত কেউ একজন চেষ্টা করেছিল তাদের ধ্বংস করতে। যখন সমস্ত মেশিন এবং প্লেন আল্লাহ্‌র সাহায্য দিয়ে ধ্বংস করা হয় তখন একটি খুব বিশাল মেশিন টাইপ প্লেন শেষে রয়ে যায়, অগ্নিসংযোগ যা আমার দিকে খুব ভারীভাবে এসেছিল, এবং আমিও খুব তাড়াতাড়ি চলে গিয়েছিলাম। এবং তারপর আমি আকাশে আল্লাহ্‌ নূর ছুড়ে ফেলি। এবং তারপর সমস্ত আকাশে দ্রুত নূর ছড়িয়ে পরে। তারপর বিশাল প্লেন আল্লাহ্‌র নূর দ্বারা ধ্বংস হয়েছিল এবং সাথে সাথে সমস্ত আকাশ আল্লাহ্‌র নূর এর সঙ্গে আলোকিত হয়ে ওঠে। এবং সবাই মুক্ত হয়ে গেল এবং মানুষ খুব খুশি হয়ে ওঠে। তারপর আমি জমির উপর এসেছিলাম। এবং লোকেরা আমার কাছে এসেছিলেন এবং বলেছিলেন যে, আপনি একটি আশ্চর্যজনক জিনিস করেছেন। তারপর আমি বললাম, না, বরং আল্লাহ্‌ সুবহানাহু ওয়াতায়ালার সহায়তায় এটি সম্ভব হয়েছে এবং সত্যই আল্লাহ্‌ তার ক্রীতদাসদের সাহায্য করেন। পরে লোকেরা আমাকে তাদের বাড়িতে আমন্ত্রণ জানালো এবং আমি বললাম যে এটির প্রয়োজন নেই কিন্তু তারা জোর করে। এবং আমি মজা করে বললাম যে, যদি শুধুমাত্র আমি নিজেকে ক্লোন করতে পারি তারপর আমি সক্ষম হবো প্রত্যেকের বাড়ীতে যেতে। সুতরাং তারা হেসেছিলেন এবং বলেছিলেন যে, কোন ব্যাপার না, কি ঘটেছে, আমরা তোমাকে একা ছেড়ে যাব না। স্বপ্ন এখানেই শেষ হয়।