মোহাম্মাদ কাসীম বলেন, ১২/২০১৫ তারিখের স্বপ্নে আমি একটি বিশাল ঘর দেখেছি যেখানে প্রাচীরে একটি বিশাল রঙের বোর্ড ছিল। সেখানে বিভিন্ন রঙের রং এবং ব্র্যাশের জোড়া ছিলো। আমি ঘাসের উপর ৩ বা ৪টি গরু চারণ করতে দেখি। হঠাৎ করেই আল্লাহ্ আমাকে স্বপ্নে দেখিয়েছেন এমন একটি ছবি আঁকতে বলেছিলেন। আমি এক পাশ থেকে পেইন্টিং শুরু করি এবং আমি সেভাবেই অংকন করছিলাম আল্লাহ্‌ ঠিক যেভাবে চেয়েছিলেন। তারপর আমি ধীরে ধীরে ক্লান্ত হয়ে পড়েছিলাম অনেক শক্তি ব্যবহার করার পরে। আমি বোর্ডের অর্ধেক ছবি আঁকলাম। আমি নিজেকে বলছিলাম, কিভাবে? এর তুলনায় আমি আর বেশি আঁকতে পারি না। আমি এত ক্লান্ত ছিলাম। আমি কেবল অর্ধেক পেইন্টিং সম্পন্ন করেছি। অন্য অর্ধেক এখনও বাকি ছিল। সব হতাশার মধ্যে আমি পেইন্টিং ছেড়ে দেই। আমি ঘরের অন্য পাশে হাঁটতে শুরু করেছিলাম যেখানে একটি দরজা ছিলো। আমি যে পেইন্টিং তৈরি করেছি তার দিকে আমি এক চূড়ান্ত নজর দিলাম। আমি নিজেকে বলেছিলাম, আমি আল্লাহ্‌র আনুগত্য করার জন্য আমার সর্বোত্তম চেষ্টা করেছি। কিন্তু তিনি যে কাজটি দিয়েছেন সেটি আমি শেষ করতে পারিনি। সেই মুহুর্তে আল্লাহ্ গরুগুলোকে চিত্রের বাকি অর্ধেক পূর্ণ করার নির্দেশ দেন। আমি আশ্চর্য যে গরু তাদের সামনের পায়ে এক একটি ব্রাশ নেয় এবং পেইন্টিং শুরু করে। আমি বিভ্রান্ত ছিলাম। এই গরু কিভাবে এত ​​বুদ্ধিমান হয়ে উঠলো। আমি তাদের দিকে দৌঁড়ে গিয়েছিলাম কিন্তু তারা এত দ্রুত পেইন্টিং করছিল যে আমি সেখানে যাওয়ার আগেই তা শেষ হয়ে গেছে। তারপর তারা ঘাস খেতে ফিরে গেল। যখন আমি তাদের সাথে কথা বলার চেষ্টা করেছিলাম তখন তারা সাড়া দেয়নি। পেইন্টিংটা খুবই সুন্দর ছিলো। এটি সমগ্র বিশ্ব জুড়ে বিখ্যাত হয়েছিলো। মানুষ আমাকে বলেছে, কাসীম একজন মহান শিল্পী। আমি বললাম, না, সমস্ত প্রশংসা আল্লাহ্‌র জন্যে। তিনি সেরা ফ্যাশনার। আল্লাহ্‌ নিজে একটি বিশাল এবং মহৎ পেইন্টিং তৈরি করেছেন। কেউ আগে কখনও এই রকম একটি পেইন্টিং তৈরি করেনি। এবং তারপর আল্লাহ এক কোণে আমার নাম লিখেছেন। জনগণের কাছে সুবহানআল্লাহ ছাড়া আর কোন শব্দ নেই। মানুষ মনে করে আমি একজন আশ্চর্যজনক চিত্রশিল্পী ছিলাম। মিডিয়া আমাকে জিজ্ঞাসা করলো আমি এই ধারণাটি কোথায় পেয়েছি। আমি নীরব থাকলাম কিন্তু আমার অন্তরে আমি জানতাম যে আল্লাহ্ এই পেইন্টিংটি তৈরি করেছেন। তিনি আমাকে ক্রেডিট প্রদানের মাধ্যমে সম্মানিত করতে চান। সেই স্বপ্নে যখন আমি সেই পেইন্টিং দেখেছিলাম তখন সুবহানআল্লাহ ছাড়া আমারও কোন কথা ছিল না।