মোহাম্মাদ কাসীম বলেন, ২০১৫ সালের ৯ অক্টোবরে মোহাম্মাদ (সঃ) ৩ বার স্বপ্নে আসেন। আমি মোহাম্মাদ (সঃ) কে একই রাতে ৩ বার আমার স্বপ্নে আসতে দেখি। একবার আমি দেখি যে, মোহাম্মাদ (সঃ) চিন্তিত ছিলেন এবং এখানে হাঁটছিলেন এবং চিন্তা করছেন। এবং মোহাম্মাদ (সঃ) আমাকে অত্যন্ত আগ্রহের সাথে বলেন যে, কাসীম এই বার্তা সমগ্র উম্মতের কাছে পৌঁছে দাও। মোহাম্মাদ (সঃ) বললেন, “কাসীম, যে কেহ তোমার সাথে থাকল, সে এমনই একটি ব্যক্তি যে আমার সাথে থাকল এবং যে কেহ তোমাকে সমর্থন করল, সে এমনই একটি ব্যক্তি যে আমাকে সমর্থন করল এবং বিচারের দিনে সে অবশ্যই আমার সাথে থাকবে।” এবং অন্য ২টি স্বপ্ন একই রকমের ছিল। এই স্বপ্নটি আমি ২০১৫ সালের ৩০ সেপ্টেম্বরে দেখেছিলাম, এই স্বপ্নে এটা ছিল দিনের বেলা এবং মহান আল্লাহ্‌ তার আরশে সিংহাসনের উপরে ছিলেন। মোহাম্মাদ (সঃ) এবং আমি একটা জায়গার মধ্যে ছিলাম ও আমি গভীর চিন্তিত ছিলাম এবং মোহাম্মাদ (সঃ) আমাকে চিন্তার কারণ জিজ্ঞাসা করেন। তারপর আমি মোহাম্মাদ (সঃ) কে বললাম যে, “এই কাজ অনেক কঠিন। এখন পর্যন্ত খুবই অল্প সংখ্যক লোক আমাকে এবং আমার স্বপ্নকে বিশ্বাস করেছে এবং সেখানে আরো কিছু লোক অপেক্ষা করছে এটা দেখার জন্য যে, আমার স্বপ্নগুলো সত্য হয় কি না এবং আল্লাহ্‌ই জানেন যে, সে সত্য বলছে কি না এবং অনেক লোক আমাকে পাগল ভাবছে এবং তাকে সমর্থন করা একটি গুনাহের কাজ।” এসব শুনে মোহাম্মাদ (সঃ) উদ্বিগ্ন হলেন এবং একটু রাগান্বিত হলেন এবং তাড়াতাড়ি আমার নিকটে আসলেন এবং বললেন যে, কাসীম, তুমি আমার এই বার্তা আমার সমস্ত উম্মতের কাছে পৌঁছে দাও যে, “যে কেহ তোমাকে সমর্থন করল এবং তোমার সাথে থাকল, সে এমনই একটি ব্যক্তি যে আমার সাথে থাকল এবং আমাকে সমর্থন করল। এটা আমার ইসলাম, অতএব তুমি যা কিছুই করতেছ কারণ আল্লাহ্‌ এবং আমি বলেছি এবং আল্লাহ্‌ অবশ্যই তাঁদেরকে দ্বিগুণ পুরষ্কার দিবেন। দেখ, যে কেহ তোমাকে সমর্থন করল, আল্লাহ্‌ নিজেই তাদের নাম স্বর্ণের কাগজে স্বর্ণের অক্ষরে লিখছেন এবং আমার ছেলে, আল্লাহ্‌ তাদের পুরষ্কার নষ্ট করেন না যারা ভাল কাজ করে।” মানুষ আমাকে বিশ্বাস করে বা না করে তাতে আমার কোন পরোয়া নেই। এটা আমার উপর কোন প্রভাব ফেলবে না এবং আমি কারো কাছে কোন পুরষ্কার চাচ্ছি না। মোহাম্মাদ (সঃ) আমাকে আদেশ করেছিলেন তার বার্তা প্রচার করতে এবং আমি মোহাম্মাদ (সঃ) এর আদেশ পালন করছি।