মোহাম্মাদ কাসীম বলেন, ২০১৬ সালের ১৯ ফেব্রুয়ারীর এই স্বপ্নে আমরা একটি বিশাল বিল্ডিংয়ের মধ্যে ছিলাম এবং যারা ভবনে দৌড়ে এসেছিল, এমন একটি ব্যবস্থা তৈরি করেছিল যা কাউকে পালিয়ে যেতে বাধা দেয়। আমি এই ব্যবস্থায় খুব দুশ্চিন্তাগ্রস্থ ছিলাম এবং পালিয়ে যেতে চেয়েছিলাম। কিন্তু আমি বের হওয়ার কোন উপায় খুজে পেলাম না। তারপর এক স্বপ্নের মধ্যে আল্লাহ্‌ আমাকে বললেন, সেখানে বের হওয়ার একটি পথ আছে, এটার অনুসন্ধান কর এবং আমি তোমাকে সাহায্য করব। আমি অবিলম্বে অনুসন্ধান করা শুরু করলাম এবং আমি কয়েকজন লোকের সাথে দেখা করলাম। আমি তাদেরকে বলেছিলাম, আল্লাহ্‌ আমাকে বলেছিলেন এই ব্যবস্থা থেকে বের হওয়ার একটি উপায় আছে। আসুন, চলুন যাই এবং এটাকে খুজি। কিন্তু তারা বলল “তুমি কি পাগল ?” কেউই এই ভবন থেকে পালিয়ে যেতে পারেনি এবং এমনকি যদি তারা করেও, আমাদের কোন সূত্র নেই, কিভাবে ? তাই আপনার সময় নষ্ট করবেন না এবং আমাদের সময় নষ্ট করবেন না। কেন আপনি বাকি সবার মতই এই বিল্ডিংয়ের মধ্যে বসবাস করছেন না ? আমি আমার মনের মধ্যে বললাম, আপনি ক্রীতদাসের মত জীবিত থাকা মনে করছেন ? আমি তা গ্রহণ করতে অস্বীকার করেছিলাম, তাই আমি আমার অনুসন্ধান অব্যাহত রাখলাম। আমি কিছু ক্ষমতাশালী মানুষ খুঁজে পেলাম, যাদের অনেক অনুসারী ছিল। আমি তাদেরকে বলেছিলাম, এখানে বের হওয়ার একটি উপায় আছে। তারা উত্তরে বলল, তাকে ডাক্তারের কাছে নিয়ে যান, এটি একটি পাগল। তারা আমাকে ডাক্তারের কাছে নিয়ে গেল এবং ডাক্তার তাদেরকে বলল যে, তার হৃদয়ে একটি ত্রুটি আছে এবং ঐ বিষয়ে কোন চিকিৎসা নেই। এই দেখার পরে আমি চিন্তিত হয়ে ওঠি। কেউ আমাকে শোনেনি এবং আল্লাহ্‌ এখনো আমাকে সাহায্য করেননি। আমি বিরক্ত হয়ে গেলাম, তাই আমি চলে আসি। আমি একের পর এক কয়েকটি হল অতিক্রম করেছিলাম যতক্ষণ পর্যন্ত না আমি একটি স্থানে পৌঁছাই। সেখানে, যেখানে সূর্যের আলো ছিল এবং সেই আলো এক বা দুইজনের মধ্যে জ্বলছিল। তারা আমার দিকে তাকাল এবং তাদের একজন বলল, “দেখ, তার সোয়েটার কত সুন্দর।” আমি আমার সোয়েটারের দিকে তাকালাম এবং আমি বিস্মিত হলাম। চিন্তা করছিলাম, আমি আগে কখন এই সোয়েটার পরিধান করেছিলাম ? এটা প্রকৃতপক্ষে আশ্চর্যজনক রঙের একটি খুব সুন্দর সোয়েটার ছিল। আমি বুঝতে পারিনি, তাই আমি সূর্যলোকের উৎসের দিকে হাঁটতে থাকলাম। একটি লোক বলল, “যদি সে সত্যবাদী হয়, তাহলে সে খাবার এবং টাকা বিতরণ করবে।” আমি তাদেরকে উপেক্ষা করি এবং আলোর উৎসে গিয়েছিলাম। এটা ছিল দেয়ালের মধ্যে একটি ছোট ছিদ্র, যেখান থেকে সূর্যের আলো আসছিল। আমি খুশি হয়ে ওঠি। কিন্তু বললাম, এই গর্তটি আমার পক্ষে পালাবার জন্য যথেষ্ট বড় নয়। আমি আমার হাত আটকেছি দেখতে, যদি আমি এটা বড় করতে পারি এবং তা একটু করে প্রসারিত হয়। তাই আমি উভয় হাত এবং আমার মাথা ঢোকাই এবং আমি উঠতে সক্ষম ছিলাম। আল্লাহ্‌র সাহায্য এসেছে তা জানতে পেরে আমি খুব খুশি হয়েছি। আমি এগিয়ে গিয়েছিলাম এবং আমার বাড়ি পেয়েছি, আমার বাড়ির মধ্যে সেখানে খাঁচার ভিতরে অনেক পাখি ছিল। এবং তারা ক্ষুধার্ত ছিল এবং জোরে জোরে চিৎকার করছিল। তারপর আমি ভাবলাম, কীভাবে আমি তাদেরকে খাওয়াব যেহেতু আমার সাথে তাদেরকে খাওয়ানোর কিছুই নেই। আমি উদ্বিগ্ন হয়ে গেলাম, তাই আমি আমার হাতকে মুষ্টিবদ্ধ করে চেপে ধরলাম এবং খাদ্য শস্য অনুভব করলাম। আমি শস্য ঢেলে দিলাম পাখিদের এক পাত্রের মধ্যে যতক্ষণ না তা পূর্ণ হয়ে যায় এবং আমার হাতও অবশিষ্ট শস্য দিয়ে ভরা ছিল এবং আমি আশ্চর্য হয়ে গেলাম। চিন্তা করছিলাম, “এই শস্য কোথায় থেকে আসছে ?” তারপর, আমি সামান্য পরিমাণে প্রত্যেক পাখিকে দিলাম, আমার হাতে শস্য ভক্ষণকারী পাখি ভয়ে দৌড়াতে পারে। কিন্তু তারা তা করেনি, এবং তারপর আমি তাদেরকে পানি দিয়েছি এটার মতই এবং তারা সবাই খাচ্ছিল। আমি এইসব করার পর অনেক ক্লান্ত হয়ে ওঠি এবং নিজেকে বলেছিলাম, এটা কত কঠিন কাজ। আমি তাদের খাঁচার দরজা খুলেছিলাম এবং তাদেরকে বলেছিলাম, সকালে বেরিয়ে যাওয়ার জন্য এবং তাদের জীবিকা সন্ধান করতে এবং সন্ধ্যায় তাদের খাঁচায় ফিরে আসতে এবং তাদের খাঁচাগুলিকেও পরিষ্কার রাখতে। তারা সবাই একমত হল এবং বলল, “যা কিছুই আপনি আদেশ করেন আমরা তাই পালন করব।” আমি বিস্মিত হলাম। ভাবছিলাম, কি ধরনের পাখি তারা, যে, তারা আমার সাথে কথা বলতে সক্ষম। তারপর সেই পাখিগুলো, কী আমি তাদেরকে করতে বলেছিলাম ঠিক তাই করেছিল এবং তাদের বংশবৃদ্ধি দ্রুত বেড়ে যায়। এবং আমি বললাম যে, আমি এই পাখিগুলো বিল্ডিংয়ের ধনী লোকদের কাছে বিক্রি করব এবং সম্পদ অর্জন এবং বিল্ডিংয়ের লোকদেরকে প্রভাবিত করার জন্য আমাকে অন্য কিছুও করতে হবে। এবং আমি তাদেরকে অতিক্রম করব, তাহলে তাদেরকে আমার শর্তাবলী গ্রহণ করতে হবে। আমি মনে করি, কিভাবে বিল্ডিংয়ের মধ্যে তাদের শক্তির একটি উৎসের অভাব। তাই আমি বিদ্যুৎ তৈরির জন্য একটি নতুন জেনারেটর আবিষ্কার করতে চেয়েছিলাম। তারপর আল্লাহ্‌র রহমত দ্বারা আমার সামনে একটি শক্তিশালী ও নতুন জেনারেটর হাজির হয়। আমি আশ্চর্য হয়ে গেলাম যে, আমি কেবল এটি নিয়ে চিন্তা করেছি এবং আল্লাহ্‌ তা বাস্তবে পরিণত করেছেন। তারপর আমি সেই ভবনটির লোকদেরকে বলেছিলাম যে, আমি বিদ্যুৎ উৎপাদনের জন্য একটি খুব সহজ ও নতুন সূত্র আবিষ্কার করেছি। তারপর সেই লোকগুলো তাদের সেরা ইঞ্জিনিয়ারদের পাঠাল এবং তারা জেনারেটর দ্বারা বিস্মিত হল এবং তারা অনুরূপ একটি সূত্র তৈরি করতে অনুরোধ করল। জনগণকে মুক্ত করার জন্য আমার সম্পদ দরকার। তাই আমি বললাম, আপনি কি মনে করেন যে আমি আপনাকে এটি বিনামূল্যে দিব ? তারপর আমি পাখি এবং সূত্র বিক্রি করে প্রচুর সম্পদ অর্জন করেছি। আমি মালিকদেরকে টাকা দিয়ে বিল্ডিং থেকে অনেক মানুষ মুক্ত করেছি এবং আমি জনগণের মধ্যে টাকা বিতরণ করেছি এবং তাদেরকে খাদ্য দিয়েছিলাম, সেইসাথে বাস করার জন্য একটি জায়গা। ভবনটিতে এখনো অনেক লোক ছিল এবং আমি বিতর্কিত ছিলাম, আমি কি, বাকি খাবার এবং টাকা তাদের সকলকে দিয়ে দিব কি না। আমি জানি, যদি টাকা শেষ হয় আমি লজ্জা বোধ করব এবং আমি অন্যদেরকে বাঁচাতে এবং তাদেরকে বিতরণ করতে পারব না। এবং আল্লাহ্‌ আকাশ থেকে বললেন যে, “ঐ লোকগুলো, যারা আল্লাহ্‌র করুণা থেকে হতাশ হয় না এবং ধৈর্যশীল হয়ে থাকে, তারপর আল্লাহ্‌ তাদেরকে এমন একটি পুরস্কার দেয় এবং আল্লাহ্‌র ভাণ্ডার বিতরণের দ্বারা শেষ হয় না। পরিবর্তে, তারা ক্রমাগত বৃদ্ধি পায় এবং আল্লাহ্‌ যা ইচ্ছা তাই করেন, কিন্তু অধিকাংশ লোক তা জানে না।” স্বপ্ন এখানেই শেষ হয়।