মোহাম্মাদ কাসীম বলেন, মার্চ ২০১৫ তারিখের এই স্বপ্নে আমি দেখি যে, আমি আমার পুরাতন ঘরের মধ্যে ছিলাম, যেটি একেবারেই ভাঙ্গাচোরা ছিল, সে ঘরে লাইটও ছিল না এবং ঘরের খুব খারাপ অবস্থা ছিল, আমি বলতেছিলাম যে, মনে হচ্ছে এই অন্ধকার ঘরে থাকা, এটাই আমার ভাগ্যে লেখা ছিল। তখন হঠাৎ আল্লাহ্‌ সুবহানাহুওয়া তা’য়ালা, আরশে আসেন, এবং বলেন যে, কাসীম আর কতক্ষণ এই অন্ধকার ঘরে বসে থাকবে, ঘর থেকে বেরিয়ে আসো এবং আমার নেয়ামতের ও বরকতের ঘর তালাশ কর, যেখানে কোনো অন্ধকার এবং নেই কোনো অশান্তি, এটা শুনে আমি খুব খুশি হয়ে উঠলাম এবং বলতেছিলাম, আল্লাহ্‌ খুব দয়ালু, তিনি আমাকে এই অন্ধকার থেকে বাহির করার জন্য এসেছেন, আমি অনেক আনন্দের সাথে ঘর থেকে বেরিয়ে আসি, একটু দূরে যেতেই দেখি যে, আট দশটি সিংহ, মনে হচ্ছে খুব ক্ষুধার্ত এবং আকারেও অনেক বড় ছিল, আমি এসব দেখে ভয় পেয়ে গেলাম এবং পিছনে ফিরে আমার ঘরের দিকে দৌড়াতে শুরু করলাম, এবং ঘরে ঢুকে তাড়াতাড়ি দরজা বন্ধ করে ফেললাম, তখন বলতেছিলাম, হে আল্লাহ্ বাহিরে তো আট দশটি ক্ষুধার্ত সিংহ, এই‌ সিংহগুলোতো আমাকে খেয়ে ফেলবে, তখন আল্লাহ্‌ বললেনঃ তুমি আমার প্রতি বিশ্বাস করো। এই সিংহগুলোর একটিও তোমার কাছে পৌঁছাতে পারবে না। আমি সিংহগুলোকে দেখার জন্য জানালা দিয়ে বাহিরে দেখতেছিলাম, তখন তিনটি কুকুর ভয়ংকর আওয়াজ করতেছিল এবং লাফ দিয়ে আমার দিকে আসতে ছিল, আমি পিছনের দিকে দৌড় দেই এবং মাটিতে পড়ে যাই, জানালাতে ছিল লোহার জালি, সেই জালিতে ধাক্কা খেয়ে কুকুরগুলো বাহিরেই পড়ে যায়, তখন আমি বললাম হে আল্লাহ দেখুন, এই কুকুরগুলো আমার উপর হামলা করেদিল, আর আপনি বলতেছেন, সেই ক্ষুধার্ত সিংহগুলো আমার কাছে পৌঁছাতে পারবে না, আমি ঘরের এক কোণে বসেছিলাম, তখন আল্লাহ্ সে কুকুরগুলোর উপর বিদ্যুৎ আকারে আল্লাহ্‌র গজব নাজিল করেন, কুকুরগুলো জ্বলে সেখানে মরে গেল, তখন আল্লাহ বললেন, কাসীম, সেই কাজগুলো কর, যা আমি তোমাকে আদেশ করেছি, আর না হয় এ অন্ধকার ঘরে পড়ে থাকো চিরদিনের জন্য। তুমি আমার উপর বিশ্বাস রাখ, আমি তোমাকে হেফাযত করব এবং তোমাকে তোমার গন্তব্যস্থানে সহি সালামতে পৌছে দেব, অবশ্যই আমি আমার কাজ সম্পন্ন করে থাকি। এই কথাগুলো বলে আল্লাহ্‌ সেখান থেকে চলে গেলেন, আমি সেখানে বসে বসে চিন্তা করতেছিলাম এখন আমি কি করবো, তখন আমি নিজেকে বললাম কাসীম মরণ তো এখানেও আসবে, বাহিরে গেলেও আসবে, আমি বাহিরে গিয়েই মরব এটাই উত্তম হবে, তখন আমি বলি যেহেতু আল্লাহ্‌ আমাকে বলেছেন, তিনি আমাকে আমার গন্তব্য স্থানে সহিসালামতে পৌঁছে দেবেন এবং আমাকে হেফাজত করবেন,,, আমাকে আল্লাহ্‌র উপর ভরসা করা উচিত এবং এটি করা ছাড়া আমার কাছে আর কোন রাস্তাও খোলা নেই। আমি আল্লাহ্‌র নাম নিলাম ও অনেক ভয় ভীতি নিয়ে ঘর থেকে বের হলাম, আমি দরজা খোলা রেখে দিলাম, যদি কোন সিংহ আমার উপর আক্রমণ করতে চায়, আমি যেন ঘরে ঢুকে পড়তে পারি,,, আমি ভয়ে ভয়ে চলতে থাকি কিন্তু কোন সিংহ চোখের সামনে পড়ল না, আমি চিন্তিত হলাম এই সিংহগুলো কোথায় চলে গেল, তখন একটু সামনে গিয়ে দেখি যে, সিংহের দেহের একটি কাটা অংশ পড়ে রইল, আর একটু সামনে গিয়ে দেখি যে আরেকটা সিংহের মাথা পড়ে রইলো, আমি এগুলো দেখে বললাম, এটা অবশ্যই আল্লাহ্‌র কাজ, কারণ আল্লাহ্‌ ছাড়া কেউ এই কাজটি করতে পারবে না, আমি আমার সামনে অনেক উঁচু একটি বিল্ডিং দেখি, আমি ঐ বিল্ডিংটির ছাদে যাই এবং আল্লাহ্‌কে খুঁজতে থাকি,,, আমি দেখি যে আল্লাহ্‌র নূর, আমার থেকে অনেক দূর দিয়ে উড়ে যাচ্ছিল, তখন আমি সেই নূরের পিছে দৌড়াতে শুরু করি, যখন আমি সেই নূরটির কাছে গিয়ে পৌঁছাই, তখন নূরটি সেখান থেকে আবার অন্য কোথাও অদৃশ্য হয়ে গেল, তখন আমার স্মরণ হল আমি কিভাবে এই বিল্ডিংয়ের ছাদ থেকে দৌড়ে এখানে চলে আসলাম, আমি নিচে কেন পড়ে গেলাম না, আর কিভাবে আমি আল্লাহ্‌র সাহায্যে বাতাসে উড়লাম, তখন আমি বলি আল্লাহ্‌ ই আমাকে সাহায্য করেছেন, তখন আমি খুব আনন্দিত হলাম এবং আল্লাহ্‌র নাম নিয়ে জোরে জোরে বলতে থাকি, হে আল্লাহ্‌, তুমি কোথায় ? তখন আল্লাহ্‌ অনেক দূরের একটি জায়গার নাম নিয়ে বলল, কাসীম আমি এখানে তাড়াতাড়ি আমার নিকট আসো, তখন আমি চিন্তিত হয়ে এদিক ওদিক দেখতে থাকি, কিভাবে আমি আল্লাহ্‌র কাছে পৌঁছাব ? তখন আমি দেখি যে, অনেক দামি কালো রঙের একটি মোটর সাইকেল, আমি সেটি চালাতে শুরু করি কিন্তু রাস্তা ছিল কাঁচা, এই কারণে আমি মোটর সাইকেল জোরে চালাতে পারছি না, আমি মনে মনে বললাম যদি পাকা রাস্তা হত, আমি আর একটু জোরে চালিয়ে যেতে পারতাম, এ কথাটি বলতে বলতেই দেখি যে জমিনের নিচ থেকে কালো, পাকা রাস্তা বেরিয়ে আসলো, তখন আমি মোটর সাইকেল সর্বোচ্চ গতিতে চালিয়ে, আমার গন্তব্যে পৌঁছে যাই, সেখানে একটি চমৎকার বিল্ডিং ছিল, দেখে মনে হচ্ছিল খামারবাড়ি, যেখানে মানুষ অবসর সময় কাটানোর জন্য যায়, আমি খুব খুশি হই এবং ভিতরে যাই, ভিতরের পরিবেশ খুবিই শান্তিপূর্ণ ছিল, মনে হচ্ছিল শতাব্দী ধরে কেউ এখানে আসেনি,,, তবে এটির কালার ছিল মাটির রংয়ের মতো, একটু সামনে তাকিয়ে দেখি যে, সেখানে তাজা তাজা রং দিয়ে সাজানো, মনে হচ্ছিল আল্লাহ্‌ সুবহানাহু ওয়া তা’য়ালা এই বিল্ডিংটিকে আবার নতুন করে মেরামত করেছেন, সেখানে আমি অনেক ধরনের হালাল প্রাণী দেখেছিলাম,,, আমি হাটতে হাটতে একটি বড় ধরনের রুমে প্রবেশ করি এবং সেখানে আমি আল্লাহ্‌র নূর দেখতে পাই, তখন সেই নূর থেকে আওয়াজ আসছে ছিল, কাসীম, আমি কি বলিনি, তোমাকে আমি এখানে পৌঁছিয়ে দেব সহি সালামতে ??? তখন আমি আল্লাহ্‌ কে বলি, আপনি আপনার ওয়াদা পূরণ করেছেন, আপনি আমাকে রাস্তা দেখিয়েছেন এবং আমাকে অন্ধকার থেকে বের করে এই আলোতে নিয়ে এসেছেন, আপনিই সর্ব উত্তম রাস্তা দেখানেওয়ালা, আমি কাল সকালে গোসল দিয়ে রেডি হয়ে, আমার সকল কাজ সম্পূর্ণ করে আপনাকে জানিয়ে দেব। তখন আল্লাহ্‌ সুবহানাহুওয়া তা’য়ালা খুব গুরুত্বের সাথে বললেন যে, কাসীম, যদি তুমি তোমার সকল কাজ কালকে দিনে শেষ করতে পার, আমিও সন্ধ্যাবেলায় কেয়ামত সংঘটিত করে দেবো। স্বপ্নে এখানেই শেষ হয়।