মোহাম্মাদ কাসীম বলেন, আমি এই স্বপ্নটি দেখেছি ১৯ আগস্ট ২০১৭। আমি খুব বড় একটি বাড়ির ছাদে ছিলাম, যেটা অন্যান্য ছোট ছোট বাড়ির সাথে যুক্ত ছিলো যেখানে আমি সহ অন্যান্য মুসলমানরা বাস করতো। দূরত্বে আমি দুইটি পৃথক বড় বাড়ি দেখেছিলাম এবং তার চারপাশে খুবই কম ছোট বাড়ি ছিলো যেখানে মুসলমানরা বাস করতো। সেখানে চারপাশে বিশাল অতি উন্নত বিল্ডিংগুলো ছিলো। আমি দেখেছিলাম মানুষগুলো একত্রে একটি বড় প্লেন তৈরি করছিলো। কিন্তু তারা শুধু একটি পাখার সাথেই ইঞ্জিন স্থায়ী করছিলো এবং অন্যটির সাথে নয়। যখন এটি উড়তে শুরু করলো আমি খুবই আঘাত পেলাম। আমি বলেছিলাম যে, কোন ধরনের মানুষ এরকম বিশাল প্লেন তৈরি করতে পারে এবং দুই দিক স্থায়ী করেনা উড়ানোর আগে। এই প্লেনটি ধ্বসে যাবে যখনি এটি ছাড়বে এবং অনেক ধ্বংসের কারন হবে। তারপর আমি দেখলাম, প্লেনটি একটু ঘুড়লো এবং হঠাৎ আমি নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে গেলাম আর আমার বাড়ির দিকে উড়তে শুরু করলাম। আমি খুবই ভীত হয়েছিলাম। প্রভাবিত হওয়ার মুহুর্তে অনেক বড় একটি বিস্ফারণ সৃষ্টি হয়েছিলো যেটা আমাকে আঘাতে নত করেছিলো। আমি সাহস সঞ্চয় করি এবং উঠে দাঁড়াই। আমি দেখেছিলাম যে, প্লেনটি আমার সংলগ্ন একটি বাড়ির উপর অবতরণ করেছিলো এবং বাড়িটি ধ্বংস হয়ে গিয়েছিলো। আগুনের কণাগুলো সর্বত্র পড়ছিলো। এটার কারনে আমাদের বাড়ির একটি দেয়াল আগুন ধরার উপক্রম হয়েছিলো। আমাদের বাড়ির লোকজন ভীত হয়েছিলো। বলছিলো, কে এটা করেছে? তারপর আমি তাকালাম এবং জায়গাটি দেখলাম যেখান থেকে প্লেনটি উড়েছিলো এবং নিকটে আমি দেখেছিলাম দাজ্জাল একটি বাড়ির ছাদে ছিলো। আমি আঘাত পেলাম এবং সন্দেহযুক্ত ছিলাম যে, সে ওখানে কি করছে? সে মনে হয় অদ্ভুত কিছু করছে। তারপর সে তার ক্ষমতা ব্যবহার করে বাতাস ও মেঘকে একত্রিত করে এবং একটি ভয়াবহ বাছাইকৃত বজ্রঝড়্বৃষ্টি তৈরি করে। সে এটি পাঠিয়ে দেয় ওই জায়গার দিকে যেখানে দুইটি বড় বাড়ি আর কিছু ছোট ছিলো। এই বজ্রঝড়বৃষ্টি খুবই ভয়াবহ ছিলো যেটা শুধু দেখেই মুসলমানরা ভীত হয়ে যায়। বজ্রঝড়বৃষ্টিটি থেমে যায় ওই বাড়িগুলোর উপরে। গভীর কালো মেঘের সাথে আলো এবং দ্রতগামী বাতাস ছাদগুলো আবৃত করে, যেন একটি বিশাল হারিকেনের মত ঘুড়ছিলো। এটা এমন অনুভূত হচ্ছিলো যেন সবকিছু ধ্বংস করে দিতে যাচ্ছিলো। হারিকেনটি এত বৃহদাকার ছিলো যে এটার মেঘগুলো আমার ছাদের দিকে আসছিলো। একটি বিশাল আতঙ্ক বাড়ির মুসলমানদের মধ্যে ছড়িয়েছিলো। কোন মুসলমান অথবা বিদ্বান ব্যক্তি সাহস জড় করে কোন কিছু বলতে পারেনি। সকল মুসলমান আল্লাহ্‌র কাছে প্রার্থনা করা শুরু করে ছিলো এই বজ্রঝড়বৃষ্টি বন্ধ অথবা শেষ হওয়ার জন্য। আমি বলেছিলাম যে, দাজ্জাল এই সবকিছু করছে। মিনতি করার চেয়ে কার্যকর কিছু করাই উত্তম। আমি দাজ্জাল এর দিকে তাকিয়েছিলাম, সে আকাশের দিকে তাকাচ্ছিলো এবং কিছু ভাবছিলো। আমি অবাক হয়েছিলাম যে, সে কি দেখছিলো এবং কিসের অপেক্ষা করছিলো। তারপর হঠাৎ দাজ্জাল আকাশে তার হাত উঁচু করেছিলো এবং কিছু করেছিলো। আমি নির্ধারণ করলাম যে নেমে সেখানে যাওয়া এবং অন্য শত্রুদের প্রতিরোধের চেষ্টা করাই উত্তম। যখনি আমি চলে গেলাম বৃষ্টি বর্ষণ হওয়া শুরু হয়ে ছিলো। আমার নেমে যাওয়ার পথে আমি লক্ষ্য করেছিলাম যে ঘরের ছাদের নিচের অংশ পর্যন্ত পানির ফোটায় পরিপূর্ণ হচ্ছিলো। আমি বলেছিলাম যে, এটা কি, পানি কি ছাদ থেকে পড়ছিলো? এমনকি সেখানে একটি ছিদ্রও ছিলো না। তারপর নিচের মেঝেতে আমি লক্ষ্য করলাম একই পানি ছাদের নিচের অংশ থেকে ক্ষরিত হচ্ছিলো আগের মতই। আমি আতংকিত হয়েছিলাম, ভেবেছিলাম যে এটা কিভাবে সম্ভব! এটা আমাদের বাড়িটি সম্পূর্ণভাবে ধ্বংস করবে। আমি অন্যদের দিকে তাকালাম এবং তাদেরকে খুবই দুশ্চিন্তিত দেখাচ্ছিলো। তারপর আমি ছাদে ফিরে এলাম। বৃষ্টি এতটাই বেশি ছিলো যে, তাই দূরে কিছুই দেখা যাচ্ছিলো না। আমি কিনারার উপর তাকিয়েছিলাম এবং দেখেছিলাম যে, পানি পুরো বাড়িতে সঞ্চিত হচ্ছিলো। পানি চারপাশে অনিয়মিত ধাক্কা দিচ্ছিলো। আমি অনুভব করেছিলাম যে, এটা দেয়ালগুলো ভাঙতে যাচ্ছে। আমি প্রধান ফটকের দিকে তাকিয়েছিলাম এবং এটা বন্ধ ছিলো। আমি খুবই আঘাত পেয়েছিলাম দাজ্জালের শক্তি দেখে। আমি বলেছিলাম যে, আমার প্রধান ফটকটি খুলে দেয়া উচিত যাতে পানিগুলো চলে যেতে পারে এবং যেন প্রেসার প্রত্যাহার হয় দেয়ালগুলো ভাঙার আগে। আমি সর্বনিম্ন তলে গেলাম এবং দেখলাম অনেক লোক পানিতে ডুবে যাচ্ছিলো। আমি সাঁতার কেটে প্রধান ফটকের দিকে যাচ্ছিলাম এবং সেটি আঁকড়ে ধরেছিলাম। পানিগুলো শক্তি দিয়ে ঠেলাঠেলি করছিলো কিন্তু আমি দরজা খোলা পরিচালনা করছিলাম। সব পানি চলে গিয়েছিলো এবং আমরা সবাই নিরাপদ হই। তারা বলেছিলো, কাসীম যদি তুমি দরজাটি খুলে না দিতে তাহলে আমরা অবশ্যই ডুবে যেতাম। তারপর হঠাৎ কিছু বাহিনীর লোক এসেছিলো এবং আমাদেরকে হুশিয়ারি দিয়েছিলো যারা আমাদের বাড়িগুলো আক্রমণ করেছিলো তাদের বিরুদ্ধে। লোকজন হতাশ হয়ে বলছিলো কিভাবে একটা সমস্যা সমাধান হয়েছিলো এবং এখন আর একটা শুরু হলো। যখন বাহিনীর লোকজন চলে গেল, আমি তাদেরকে অনুসরণ করা নির্ধারণ করলাম নির্দোষীদের প্রতিরোধ করার উদ্দেশ্যে। তারপর আমি থামলাম এবং বুঝলাম আমার গোলাবারুদ প্রয়োজন যুদ্ধ করার জন্য। বাড়িটি খোঁজার পরে, একটি ঘরে আমি কিছু গোলাবারুদ এবং শক্তিশালী অস্ত্র সুযোগ সহ এবং একটি পোশাক পাই। আমি দেখেছিলাম যে, বাড়িটির পিছনের দিকটা অযত্নে নষ্ট হয়ে যাচ্ছিলো এবং দেয়ালের অন্য দিকে সেখানে একটি বাড়ি ছিলো। তারপর আমি পিছনে আমার পথ তৈরি করি। বাহিনীরা কিছু লোকের সাথে যুদ্ধ করছিলো কিন্তু তাদের গোলাবারুদ ছিলো দূর্বল এবং বের হয়ে যাচ্ছিলো এবং তাদের শত্রুরা ছিলো খুবই শক্তিশালী। ওই শত্রুদের ছিলো খুবই শক্তিশালী প্রতিরোধ ব্যবস্থা, বাহিনীদের ছেড়ে যাওয়া বিশাল অপকারীতা ছিলো। আমি ভালোভাবে লুকিয়েছিলাম এবং সুযোগের প্রতি তাকাচ্ছিলাম। আমি দেয়াল থেকে খুব পরিষ্কারভাবে তাকাতে পারছিলাম। আমি লক্ষ্য নির্ধারণ করেছিলাম এবং অস্ত্র চালু করেছিলাম যেটা দেয়াল এর ডানদিক থেকে যাবে এবং শত্রুদের আঘাত করবে। শত্রুরা হিংস্র হয়েছিলো এবং অবচেতন হয়ে গিয়েছিলো। আমি খুবই আশ্চর্য হয়েছিলাম, ভাবছিলাম যে কি অস্ত্র এটা! আমি আরো কয়েকবার অস্ত্রটি চালু করেছিলাম এবং বাকী শত্রুরাও অজ্ঞান হয়েছিলো। সৈন্যবাহিনীও আমাকে দেখেছিলো এবং আশ্চর্য হয়েছিলো যে, এটা কি রকম অস্ত্র? আমি তাদেরকে বলেছিলাম যে, এই শত্রুরা খুব শক্তিশালী এবং শুধু এই অস্ত্রটাই তাদের থামাতে পারে। তারপর আমরা একটি ঘরে গিয়েছিলাম এবং সেখানে একজন লোক পুরো দালানটি নিয়ন্ত্রণ করছিলো। তাকে দেখার পর, আমি জেনেছিলাম যে, সে দাজ্জালের একজন সাহায্যকারী। আমি ওই ব্যক্তিকে ধরেছিলাম এবং সৈন্যবাহিনীকে বলেছিলাম যে, তাকে সতর্কতার সাথে পাহারা দিতে। সে তার নেতা কোথায় সে সম্পর্কে জানে। আমি সৈন্যবাহিনীকে বলিনি যে দাজ্জাল এই লোকগুলোকে পাঠিয়েছিলো। তারপর আমরা ফিরে আসি এবং সৈন্যবাহিনী বলেছিলো যে, শত্রুর মোকাবিলা হয়েছে এবং সবাই খুশি। তারপর তারা বলেছিলো, কাসীম এইসব শত্রুদের পরাজিত করেছিলো যখন আমরা কোনকিছু করতে অপারগ ছিলাম। লোকজন আশ্চর্য হয়েছিলো এবং বলেছিলো, কাসীম, তুমি কিভাবে শত্রুদের প্রতিহত করেছিলে? কোথায় তুমি এই অস্ত্র এবং পোশাক পেয়েছিলে? তুমি কি সৈন্য? আমি বলেছিলাম, জ্বী, আমি আল্লাহ্‌ সুবহানাহু ওয়া তায়ালার একজন সৈন্য। তারপর আমি দাজ্জাল সম্পর্কে ভাবছিলাম এবং বলেছিলাম যে, এটা মাত্র শুরু হয়েছে। আমি কখনো সুযোগ নিতে চাইনা কি পরিমান ধ্বংস সৃষ্টি করেছিলো বজ্রঝড়বৃষ্টি তা দেখার জন্য। এটা ভারী বৃষ্টিপাতের কারন। স্বপ্ন এখানেই শেষ হয়।