মোহাম্মাদ কাসীম বলেন, ২৬ মে ২০১৮ সালের স্বপ্নে আমি চিন্তা করলাম পাকিস্তান সেনাবাহিনীর খাদ্য কি হয় যে, শত্রুরা তাদের ক্ষতি করতে পারে? তারপর আমি একটি কণ্ঠ শুনতে পেয়েছি যে বলেছে, এটা ডলার এবং জ্বালানী। যদি দুটি শেষ হয়ে যায় তাহলে সেনাবাহিনী পক্ষাঘাতগ্রস্ত হয়ে যাবে এবং কোন আন্দোলন করতে সক্ষম হবে না। তারপর আমি মনে করি যে, ডলার থেকে জ্বালানি তেল কেনা হয়, যদি ডলার শেষ হয়ে যায় তবে তারা জ্বালানী তেল কিনতেও সক্ষম হবে না। তারপর আমি দেখতে পাই পাকিস্তানের অবস্থার অবনতি হয়েছে। পাকিস্তানকে ঋণ কিস্তির পরিশোধ করতে হয়েছিল যা আমাদের করা ছিলনা। যদি আমরা কিস্তি পরিশোধ করি, তাহলে সেখানে কোনো ডলারের ভাণ্ডার থাকবে না। এক বা দুই সেনা কর্মকর্তারা নির্দেশ দিয়েছেন যে, বিদেশী পাকিস্তানিদের আমাদের কাছে ডলার পাঠানো উচিত যাতে আমরা জ্বালানি কিনতে পারি। আমি নিজেকে জিজ্ঞেস করলাম যে, কতক্ষণ ধরে তারা আমাদের কাছে ডলার পাঠাতে থাকবে, তাদের অবশ্যই তাদের নিজস্ব চাহিদা থাকতে হবে, কেন সেনাবাহিনী এত অকার্যকর পরিকল্পনা করছে? তারপর ঋণ কিস্তি দেওয়া হয় এবং অবশিষ্ট ডলার মজুদ কিছুই কাছাকাছি নেই। এরপর আমি দেখি সেনাপ্রধানকে খরচ কমানোর জন্য সব ধরনের বিধিনিষেধ আরোপ করতে। এতটা, যাতে টিভি চ্যানেলগুলি সরকারী সেবা বার্তা সম্প্রচার শুরু করে, যাতে নাগরিকরা সহজতর জীবনধারা গ্রহণ করতে পারে। ক্রীড়া এবং ইভেন্টের মত সমস্ত অতিরিক্ত কার্যক্রম সীমাবদ্ধ করা হয়। তারপর সেনাবাহিনী খোলাখুলি স্বীকার করে যে, পরিস্থিতি খুবই খারাপ। অন্যদিকে শত্রুরা ৪ থেকে ৫ টি বড় শহরগুলোতে বিশৃঙ্খলা তৈরির পরিকল্পনার বাইরে চলে যায়, যাতে সেনাবাহিনীর জন্য তা নিয়ন্ত্রণের বাইরে যায়। তারপর আমি এক বড় সেনা কর্মকর্তার সাথে দেখা করতে যাই। আমি মনে করি এটা লেফটেন্যান্ট জেনারেলের বাড়ি ছিল। আমি সেখানে তার জন্য অপেক্ষা করছি যাতে আমি তাকে আমার স্বপ্ন সম্পর্কে বলতে পারি। কিছুক্ষণ অপেক্ষা করার পরে, আমি কিছু জিনিসের জন্য বাইরে যাই। আমি বাইরে অনেক নিরাপত্তা খুঁজে পাই, এবং রাস্তার উভয় পাশে একটি অবরোধের সাথে ঘরটি সুরক্ষিত ছিল। হঠাৎ দুটি বড় গাড়ি দেখা যায়। দরজা খোলা হয় এবং তারা বাড়িতে প্রবেশ করে। আমি অবিলম্বে ভিতরে যাই যাতে আমি অফিসারের সাথে দেখা করতে পারি। যখন আমি ভিতরে যাই, আমি খুজে বের করি ইহা অন্য কিছুই নয় তবে উনি পাকিস্তানের সেনাপ্রধান। তারপর আমি বুঝতে পেরেছি যে, এই অবরোধ এবং নিরাপত্তা এর কারণ ছিল। আমি আমার স্বপ্নের কথা স্মরণ করলাম, পাকিস্তানের সেনাপ্রধান এর জীবন বিপদের মধ্যে ছিল, আমি যদি নিজেকে সেই সময়ের কথা জিজ্ঞাসা করি? যাইহোক, আমি ভিতরে গিয়ে সেনা প্রধানের সন্ধান করি। আমি সম্ভবত তাকে টিভি আরাম কক্ষে খুঁজে পাই। আমি তাকে আমার সালাম জানাই। এবং তাকে বলি যে, তার সাথে আমার একটা গুরুত্বপূর্ণ জিনিস নিয়ে কথা বলার আছে। তিনি আমাকে ডাইনিং রুমে নিয়ে গেলেন যেখানে আমি তাকে আমার স্বপ্নের কথা বলতে শুরু করি। তিনি শান্তভাবে আমার কথা শোনেন। আমি তাকে গাযওয়া ই হিন্দ সম্পর্কেও ভালভাবে বলি। এবং কিভাবে বিশৃঙ্খলা ঘটবে এবং পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনের বাহিরে চলে যাবে এবং কিভাবে তৃতীয় বিশ্ব যুদ্ধ শুরু হবে। পাকিস্তানের কৌশল কী হওয়া উচিত? আমি তাকে আরও বললাম যে, বিশ্বের মুসলমানরা গাজওয়া ই হিন্দের প্রথম বিজয় দেখতে পাবে, এবং সেনারা কীভাবে এর জন্য পরিকল্পনা করবে? আমার বক্তব্য শোনার পর সেনাপ্রধান বলেন, কাসীম আমার কথা শোনো, এই সব স্বপ্ন এবং বাস্তবতার সঙ্গে তার কোন সম্পর্ক নেই। আমরা পাকিস্তান প্রতিরক্ষার জন্য সবকিছু করব। এখন এটা একটি কঠিন সময়, কিন্তু আমরা সবকিছুর যত্ন নিবো। স্বপ্ন শেষ হয়ে গেল।