মোহাম্মাদ কাসীম বলেন, ৩০/১১/২০১৫ তারিখের একটি স্বপ্নে আমি দেখি যে, আমি কোথাও দৌঁড়াচ্ছিলাম এবং আমি নিজেকে জিজ্ঞেস করলাম, আমি কোথায় যাচ্ছি? মোহাম্মাদ (সঃ) আলোতে হাঁটায় অভ্যস্ত ছিলেন। আল্লাহ্‌ তাঁর দয়ায় জায়গাটিকে আলোয় পরিপূর্ণ করেছিলেন এবং তারপর সেখানে আমি। কে পথ খুঁজে পাবেনা মোহাম্মাদ (সঃ) এর জাতি হওয়ার পরেও। আমি আল্লাহ্‌র কাছে মিনতি করি মোহাম্মাদ (সঃ) এর পথে চলার জন্য। যাতে আমি অবশ্যই সফল হই। তারপর আমি একটি ভবন দেখতে পাই, আমি ভিতরে প্রবেশ করি, সেখানে একটি মেয়ে রান্নাঘরে রুটি তৈরি করছিলো। আমি তাকে খাবারের জন্য বলি কিন্তু সে আমার দিকে কর্ণপাত করেনি। আমি তাকে অনেকবার ডেকেছিলাম, কিন্তু না সে আমার দিকে কর্ণপাত করছিলো, আর না আমার দিকে তাকিয়েছিলো। সে রান্নাঘরের দরজা বন্ধ করে দেয়। তারপর আমি দেখি সিঁড়ি উর্ধ্বমূখি এবং আমি উঠলাম। আমি সেখানে একটি বড় কক্ষ দেখতে পাই, সেখানে মুসলমানেরা এবং তাদের নেতারা ছিলো। আমি তাদের নিকটে যাই, তারপর আল্লাহ্‌ আমার ডান কানে বলেন, কাসীম, আমি তোমাকে যে স্বপ্নগুলো দেখিয়েছি সেগুলো বর্ননা করো। আমি থামলাম এবং তাদেরকে বললাম, আল্লাহ্‌ এবং মোহাম্মাদ (সঃ) অনেক বছর ধরে অবিরত আমার স্বপ্নে আসছেন। আল্লাহ্‌ আমাকে ওয়াদা দিয়েছেন তিনি আমাকে সাহায্য করবেন এবং আমাকে এই অন্ধকার থেকে বের করে নিবেন। এবং আল্লাহ্‌ আমাকে স্বপ্নের মাধ্যমে সোজা পথ দেখিয়েছেন। এসব শোনার পরে তারা (স্বপ্ন অবিশ্বাসীরা) হাসতে শুরু করে এবং বলে যে, তুমি কি পাগল?  কে আল্লাহ্‌কে স্বপ্নে দেখেছে ? কিছু মানুষ আমাকে বিশ্বাস করে, এবং আমি বলি, কেন নয়? আল্লাহ্‌ সবকিছু করতে সক্ষম। এবং মোহাম্মাদ (সঃ) আমাকে স্বপ্নে বলেছিলেন যে, কাসীম, যে কেউ তোমাকে সমর্থন করলো সে এমন ব্যক্তি যে আমাকে সমর্থন করলো। কিন্তু তারা আবারো আমাকে নিয়ে মজা করলো। আমি বললাম, তোমরা কেবল আমাকে নিয়ে মজা করছো, কারন আল্লাহ্‌ এবং মোহাম্মাদ (সঃ) আমার স্বপ্নে অবিরত আসছেন। তাদের নেতা বলেছিলো, হ্যাঁ, এই কারনে এবং তুমি মিথ্যা বলছো। আমি নিজেকে নীরবে বললাম, এই জাতি আল্লাহ্‌র কাছে মিনতি করছে তাদেরকে সাহায্য করার জন্য এবং তাদেরকে অন্ধকার থেকে বের করার জন্য এবং যখন আল্লাহ্‌ কাউকে পাঠান তারপর তারা উপহাস করে। আমি ওখান থেকে এগিয়ে যাই এবং যেসব লোক বিশ্বাস করেছিলো তারাও আমার সাথে হাঁটা শুরু করেছিলো। তাই বাকি লোকেরা তাদেরকে বলছিলো, আমার সাথে না হাঁটতে এবং এটা পাপ। কিন্তু তারা তাদের দিকে কর্ণপাত করেনি। এবং যেসব লোক আমার পাশে এসেছিলো, আমি আমার সংগীদের বলছিলাম, যদি এই লোকগুলো বিশ্বাস না করে তাহলে আল্লাহ্‌ তাদেরকে প্রচন্ডভাবে ঝাঁকি দিবেন এবং এর সাথেই একটি শক্তিশালী ভূমিকম্প আঘাত হানে এবং প্রত্যেকে ভয় পায়। আমি অনুভব করলাম যেন ভবনটি ধ্বসে যাবে। আমি বললাম, যদি ভবনটি ধ্বসে যায়। তারপর এর ছাদ চূর্ণ হবে। আল্লাহ্‌ আমাকে এবং আমার সংগীদের বাইরে নিবেন। ভূমিকম্প থেমে যায় এবং যেসব লোক তাদের নেতাদের সাথে ছিলো, বেশির ভাগই ভয়ে দৌঁড়ে আসে। নেতারা এবং তাদের কিছু সংগী আবারো আমাকে উপহাস করা শুরু করে। আমি তাদেরকে বলেছিলাম, আল্লাহ্‌ এরকম ভয়াবহ ভূমিকম্প পাঠিয়েছেন এবং এখনো তোমরা বুঝতে পারছো না এবং তোমরা কখনোই বুঝবেনা। আল্লাহ্‌ তাঁর সিংহাসনে খুব রাগান্বিত রুপে ছিলেন এবং আল্লাহ্‌ বলেছিলেন, তোমরা কাসীমকে উপহাস করতে থাকো, তোমাদের হাত ভেংগে যাবে এবং তোমরা ছারখার হয়ে যাবে। আল্লাহ্‌র এরকম রাগান্বিত কন্ঠস্বর শোনার পরে আমি ভয়ে কাঁপতে কাঁপতে জেগে উঠি। স্বপ্ন এখানেই শেষ হয়।